ইউটিউব ভিডিও থেকে কিভাবে টাকা আয় করা যায় ? (নিনজা টেকনিক) 

ইউটিউব-ভিডিও

ইউটিউব ভিডিও থেকে কিভাবে টাকা আয় করা যায় ? (নিনজা টেকনিক) 

How to earn money from YouTube videos? (Ninja Technique)

অনলাইন থেকে ইনকাম এর সবচেয়ে সহজ ও একমাত্র বিশ্বস্ত একটি প্লাট ফর্ম হল এই  ইউটিউব । আজকে আমরা কিভাবে ইউটিউব ভিডিও থেকে টাকা আয় করা যায় এই বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা করব ।

আমাদের দেখান এই ফর্মুলা গুলো ফলো করলে আমারা ১০০ ভাগ গ্যারান্টি দিয়ে বলতে পারি আপনি ইউটিউব থেকে একটা হ্যান্ড সাম আমাঊণ্ট টাকা আয় করতে পারবেন । 

যদি আপনি অনলাইন থেকে ইনকাম এর সবচেয়ে সহজ ঊপায় খুঁজতে থাকেন তাহলে আমারা আপনাকে বলব এখন এখন পর্যন্ত অনলাইন থেকে ইনকামের যত পন্থা আবিষ্কার হয়েছে তারমধ্যে ইউটিউব ইনকাম করা সবথেকে সহজ এবং পরীক্ষিত । 

দেশ-বিদেশে হাজার হাজার ইউটিউবার রয়েছে যাদের মায়ের কথা শুনলে আপনার চোখ কপালে উঠে যাবে । বর্তমানে বাংলাদেশের ও এমন কিছু ইউটিউবার রয়েছে যারা খুবই ভালো মানের ইনকাম করে থাকেন এ দেখো । 

এখন এমন অনেক উদাহরন আছে যে অনেকে ইউটিউব এর ইনকাম দিয়ে বাড়ি গাড়ি এর মালিক হচ্ছে আবার অনেকে চাকুরী ছেড়ে দিয়ে ইউটিউব এ সময় দিচ্ছে । এবং তারা ভাল ইনকাম ও করছে ।

ইউটিউব কি সর্ব প্রথম আমারা জেনে নিতে পারি 

ইউটিউব কি? What is YouTube?

ইউটিউব একটি ভিডিও শেয়ারিং সেবা বা মাধ্যম  যেখানে ব্যবহারকারীরা তাদের নিজস্ব ভিডিও দেখতে  পারেন, পছন্দ করতে পারেন, শেয়ার করতে পারেন, মন্তব্য করতে এবং আপলোড করতে  পারেন। 

ভিডিও পরিষেবাটি পিসি, ল্যাপটপ, ট্যাবলেট এবং মোবাইল ফোনের মাধ্যমে দেখা যায় বা অ্যাক্সেস করা যায়।

ইউটিউবের প্রধান কাজ কি?

  • ব্যবহারকারীরা ভিডিও অনুসন্ধান করতে এবং দেখতে পারেন
  •  একটি ব্যক্তিগত ইউটিউব চ্যানেল তৈরি করতে পারেন
  •  চ্যানেলে ভিডিও আপলোড করতে পারেন 
  •  অন্যান্য ইউটিউব ভিডিও লাইক/কমেন্ট/শেয়ার করতে পারেন
  •  ব্যবহারকারীরা অন্যান্য ইউটিউব চ্যানেল এবং ব্যবহারকারীদের 

সাবস্ক্রাইব/অনুসরণ করতে পারেন 

  •  ভিডিও এবং গ্রুপ ভিডিও একসাথে সংগঠিত করার জন্য প্লেলিস্ট তৈরি করতে পারেন ।

আরও জানতে পড়ুন 

ইউটিউব এর ইতিহাস এবং এর আদ্যোপান্ত 

ইউটিউব ভিডিও থেকে কিভাবে টাকা আয় করা

ইউটিউব এর ইতিহাস History of YouTube

ভিডিও শেয়ার করার জন্য ইউটিউব  একটি পরিষেবা বা ওয়েব সাইট । এটি আমেরিকান ই-কমার্স কোম্পানি পেপালের তিনজন প্রাক্তন কর্মচারী স্টিভ চেন, চ্যাড হারলি এবং জাভেদ করিম কর্তৃক ১ ফেব্রুয়ারি, ২০০৫ তারিখে নিবন্ধিত হয়েছিল। 

তাদের ধারণা ছিল যে সাধারণ মানুষ তাদের “হোম ভিডিও” ভাগ করে উপভোগ করবে। কোম্পানির সদর দপ্তর ক্যালিফোর্নিয়ার সান ব্রুনোতে  অবস্থিত ছিল।

২০০৫ সালের মে মাসে সীমিত আকারে সাইটটি খোলার কিছুদিন পরে থেকে, এটি প্রতিদিন প্রায়  ৩০,০০০ দর্শককে আকৃষ্ট করতে পেরেছিল । 

২০০৫ সালের ১৫ ডিসেম্বর ইউটিউব আনুষ্ঠানিকভাবে চালু হওয়ার সময়, এটি প্রতিদিন দুই মিলিয়নেরও বেশি ভিডিও ভিউ প্রদান করছিল। 

জানুয়ারী ২০০৬ এর মধ্যে এই সংখ্যা ২৫ মিলিয়নেরও বেশি ভিউতে বৃদ্ধি পেয়েছিল। যেখানে দৈনিক ভিত্তিতে ২০,০০০ এরও বেশি নতুন ভিডিও আপলোড করা হয়েছিল। 

২০০৬ সালে ইউটিউব প্রতিদিন ১০০ মিলিয়নেরও বেশি ভিডিও পরিবেশন করছিল, এবং সাইটে আপলোড করা ভিডিওগুলির সংখ্যাও  কমার কোন লক্ষণ দেখা যায় নি ।

ইউটিউবে ট্রাফিকের ব্যাপক বৃদ্ধি কারনে তার নিজস্ব সমস্যা তৈরি হতে শুরু করল । কোম্পানিকে ক্রমাগত আরো কম্পিউটার যন্ত্রপাতি এবং ইন্টারনেটে আরো ব্রডব্যান্ড সংযোগ কেনার প্রয়োজন দেখা দিতে লাগল । 

অনেক মিডিয়া কোম্পানি দাবী করে বসল তাদের অনুমোদন ছাড়া অনেক কন্টেন্ট ইউটিউবে আপলোড করা হয়েছে এবং অনেক ভিডিওতে কপিরাইটযুক্ত উপাদান রয়েছে । 

এভাবে ইউটিউবকে সম্ভাব্য মোকদ্দমার জন্য আরো আর্থিক সম্পদ বরাদ্দ করতে বাধ্য করা হয়েছিল ।

এর ফলে এই কোম্পানি ওয়েব সাইটকে বাণিজ্যিকীকরণে বা এর ক্রমবর্ধমান খরচ সামলানোর জন্য ইউটিউব একজন ক্রেতা খুঁজতে শুরু করল ।

২০০৫ সালে আমেরিকান সার্চ ইঞ্জিন কোম্পানি গুগল ইনকর্পোরেটেড একটি ভিডিও সার্ভিস, গুগল ভিডিও চালু করেছিল ।

কিন্তু এটি খুব বেশি ট্রাফিক তৈরি করতে পারেনি এবং গুগ লকে ২০০৬সালের নভেম্বরে ১.৬৫ বিলিয়ন ডলারের স্টক দিয়ে ইউটিউব কিনতে প্রস্তাব করা হয়েছিল। 

গুগল আগের মতোই ইউটিউবের কার্যক্রম চালিয়ে যেতে থাকে । কপিরাইট-লঙ্ঘন মামলার ঝুঁকি কমাতে, গুগল বেশ কয়েকটি বিনোদন সংস্থার সাথে চুক্তি করতে থাকে যা কপিরাইটযুক্ত ভিডিও সামগ্রীকে ইউটিউবে প্রদর্শিত হতে দেবে ।

এবং ইউটিউব ব্যবহারকারীদের তাদের ভিডিওতে কিছু কপিরাইটযুক্ত গান অন্তর্ভুক্ত করার অধিকার দেবে । 

ইউটিউব থেকে হাজার হাজার কপিরাইটযুক্ত ভিডিও ফাইল সরিয়ে দিতেও  সম্মত হয় । 

২০০৮ সালের নভেম্বরে গুগল মেট্রো-গোল্ডউইন-মায়ার, ইনকর্পোরেটেড (এমজিএম) -এর সাথে একটি চুক্তিতে পৌঁছায়। 

যেখানে স্টুডিওর কিছু পূর্ণদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র এবং টেলিভিশন শো দেখানো হয়, সম্প্রচারগুলি দেখার জন্য বিনামূল্যে, বিজ্ঞাপনগুলি প্রোগ্রামের পাশাপাশি চলতে থাকে ।

ইউটিউব ভিডিও থেকে কি ভাবে আয় করা যায় ?

How to earn from YouTube videos?

এখন ইউটিউব থেকে নানা ভাবে টাকা আয় করার উপায় আছে । এর জন্য আপানাকে তেমন কঠোর পরিশ্রম করতে হবে না । 

আপনি যদি এই ব্যাপারে একেবারে কিছুই না যেনে থাকেন তাতেও কোন সমস্যা নেই আমরা আপনাকে ধারা বাহিক ভাবে গাইড লাইন দিয়ে শিখিয়ে দিব । 

শুধু আমাদের এই  লেখা গুলো ভাল ভাবে পড়বেন এবং সেই অনুযায়ী কাজ করে যাবেন । কোথাও কোন সমস্যা হলে কমেন্ট করে জানাবেন আমরা আপনার কমেন্ট এর  সর্বাধিক গুরুত্ব দিয়ে থাকি ।

আশা করি আপনি ভাল ভাবে আমাদের কে ফলো করতে থাকলে  কোন অসুবিধা হবার কথা নয় ।

চ্যানেল বানানো থেকে শুরু করে ইনকাম করা টাকা আপনার হাতে আসা পর্যন্ত শুধু একটু ধৈর্য ধরে কাজ করে যেতে হবে ।

ইউটিউব থেকে টাকা আয়ের উপায়:-

Ways to earn money from YouTube:-

  • একটি চ্যানেল থাকতে হবে ।
  • ভিডিও আপলোড দিতে হবে ।
  • ভিডিও তে ভিউস থাকতে হবে ।
  • মিনিমাম ১০০০ সাব থাকতে হবে
  • মিনিমাম ৪০০০ ঘণ্টা ওয়াচ টাইম থাকতে হবে যা ১ বছর এর মধ্যে 
  • একটি এডসেন্স একাউন্ত থাকতে হবে ।
  • ব্যাংক একাউন্ত এর সাথে এডসেন্স একাউন্ত এর সংযোগ করতে হবে ।

এসব করার জন্য আপনার বয়স অন্তত ১৮ বছর বা তার বেশি হতে হবে। তবে বয়স না হলেও অন্য কারো সাহায্য নিয়ে ইউটিউব থেকে টাকা ইনকাম করে টাকা হাতে আনা যায় ।

ইউটিউব থেকে টাকা ইনকাম করতে নিচের ধাপ গুলো অনুসরন করতে থাকুন ।

ধাপ এক (১) 

জানতে হবে ইউটিউব এর নিয়ম কানুন 

সব ধরনের প্রতিষ্ঠান এর কিছু কিছু রুলস বা নিয়ম থাকে । ইউটিউব এর কিছু নিজস্ব রুলস বা নিয়ম আছে । 

ইউটিউব থেকে টাকা আয় করতে হলে অবশ্যই তাদের রুলস বা নিয়ম সম্পর্কে ভালো ধারণা রাখতে হবে। কাজ করার আগে এই রুলস গুলো জানা থাকলে আপনি কখনো হতাশ হবেন না ।

এখানে হতাশ হবেন না এই কারনে বলছি যে আপনি যে পরিশ্রম করবেন তা বিফলে যাবে না । কারন আপনি সঠিক নিয়মের মধ্যে থেকে রুলস গুলো ফলো করে কাজ করছেন । আপনার কষ্ট কখনো বিফলে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকল না ।

আমাদের সাথে ধাকুন আমারা আপনাকে সব সিক্রেট বলে দিব । যা ফলো করতে থাকলে আপনি ইউটিউব ছাড়া অন্য কিছু ভাবার সময় পাবেন না । 

ইউটিউব থেকে আয়

ইউটিউব এর রুলস গুলো এক নজরে জেনে নিতে পড়ুনঃ-

  • আপনি যে ভিডিও এর মালিক না তা আপলোড করতে পারবেন না । যদিও এক্ষেত্রে আরও অনেক কিছু জানতে হবে । 
  • যেকোনো ধরনের বিতর্কিত ভিডিও যেমন ধর্মীয়, রাজনৈতিক কিংবা ব্যক্তিস্বার্থে আঘাত হানতে পারে এমন কোন ভিডিও আপলোড করা যাবে না ।
  • আপত্তিকর ও অশ্লীল বিষয়বস্তু ইত্যাদি ধরনের ভিডিও ইউটিউব এ আপলোড করা যাবে না । ইউটিউবে চ্যানেল খোলার আগে ইউটিউব এর পলিসি মেনে চলা একান্ত দরকার ।
  •  ইউটিউব স্প্যাম, প্রতারণামূলক ভিডিও আপলোড ও অনুশীলনের অনুমতি দেয় না । প্রতারিত হতে পারে অথবা পারেন এমন ভিডিও  ইউটিউব এ দেয়া যাবে না ।
  • কমিউনিটি গাইডলাইন অবশ্যই মেনে চলতে হবে । এক্ষেত্রে কমিউনিটি গাইডলাইন সম্পর্কে জানতে ঘুরে আসতে পারেন এখান থেকে ।
  • ভিডিও আপলোড এর ক্ষেত্রে কিডস বা কম বয়সের দের জন্য আলাদা নিয়মে আছে । এটা অবশ্যই মানতে হবে । 
  •  কপিরাইট আইন যথাযথ ভাবে মানতে হবে । কোন ভাবেই কপিরাইট আইন ভঙ্গ করা যাবে না । 
  •  

মনে রাখবেন  কোন নিয়ম ভংগ করলেই আপনার চ্যানেল গায়েব বা হাওয়া হয়ে যাবে এক নিমিষে যা ফেরত পাবার  খুব কম সম্ভাবনা থাকবে ।

ইংরেজিতে অভিজ্ঞ হলে এখান থেকে দেখে নিতে পারেন এক নজরে ইউটিউব  পলিসি

ধাপ দুই (২)

আপনার ইউটিউব চ্যানেল সেটআপ করুন এবং তৈরি করুনঃ-

ইউটিউব একাউন্ট খুলতে প্রথমে যে জিনিসটা দরকার সেটা হল আপনার একটি জিমেইল থাকতে হবেই ।

অনেকেরই হয়তো পুরনো জিমেইল খোলা আছে অথবা থাকতে পারে কিন্তু আজকে আমরা একেবারে নতুন ভাবে একটি জিমেইল খুলে তা  দিয়ে ইউটিউব একাউন্ট ওপেন করবো ।

কারণ অনেক সময় দেখা যায় ওই পুরনো  জিমেইলে অনেক ঝামেলা থাকতে পারে । তাই কোন রিস্কে আমারা যাব না । একেবারে ফ্রেস একটি জিমেইল দ্বারা  ইউটিউব একাউন্ট খুলব ।

আপনি যদি জিমেইল খুলতে পারেন তাহলে তো কথাই নেই । আর যদি না পারেন তবে কোন সমস্যা নেই শুধু চেষ্টা করুন অথবা আমাদের লেখা দেখে ফলো করুন হয়ে যাবে । এটা কোন ব্যাপারই না ।

প্রথমেই আমরা গুগল ক্রোম ব্রাউজারের সমস্ত হিস্ট্রি ডিলিট করে দিব কারণ আমরা চাই না এই নতুন অ্যাকাউন্ট এতে পুরনো হিস্টরি থেকে কোন কিছু সিঙ্ক হয়ে যাক । 

আপনি একেবারে নতুন হয়ে থাকেন তাহলে জিমেইল খোলার জন্য এখানে থেকে সাহায্য  নিতে ক্লিক করুন সাইন আপ

জিমেই গুগল 

জিমেইল খোলা হয়ে গেলে অথবা আপনার কাছে জিমেইল একাউন্ট থাকলে আপনি ইউটিউব এ একাউন্ট খোলার জন্য এখানে  সাইন ইন এ ক্লিক  করুন ।

একটি ইউটিউব অ্যাকাউন্ট একটি গুগল অ্যাকাউন্টের মতোই । ইউটিউব অ্যাকাউন্ট এ প্রবেশ করতে হলে জিমেইল একাউন্ট দিয়েই করতে হয় ।

আপনার যদি চ্যানেল খুলতে সমস্যা হয় তাহলে এই ভিডিওটির  সাহায্য নিতে পারেন ।

একটি  জিমেইল আপনাকে জিমেইল এবং  গুগল ড্রাইভ ও  ইউটিউব এর মতো অন্যান্য গুগল পণ্যগুলিতে অ্যাক্স  দিয়ে থাকে ।

ইউটিউব চ্যানেলের উপরদিকে ডান পাশে আপনার জিমেইল একাউন্টের লোগো দেখা যাবে যেমন আপনি ছবিতে এখানে দেখতে পাচ্ছেন এরপর আপনাকে লোগোটির উপর ক্লিক করতে হবে তারপর ক্রিয়েটর স্টুডিও এর উপর ক্লিক করতে হবে ।

ক্রিয়েটর স্টুডিও তে ক্লিক করার পর আপনার সামনে একটি নতুন পেজ খুলে যাবে এখানে আপনাকে Create A Channel এর উপর ক্লিক করতে হবে ।

এইভাবে আপনি আপনার জন্য একটি ইউটিউব চ্যানেল বানাতে পারবেন ।

অ্যাকাউন্ট তৈরি করার পর অ্যাকাউন্টটি ব্যবহার করতে  শিখুন । মানুষকে আপনার চ্যানেল খুঁজে পেতে সাহায্য করার জন্য কীওয়ার্ড যুক্ত করুন।

আপনি আপনার চ্যানেল সেটিংসের কীওয়ার্ড যুক্ত করতে পারেন। নিশ্চিত করুন যে আপনার কীওয়ার্ডগুলি আপনার আপলোডকৃত ভিডিওর  সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ  মানানসই ।

একটি সংক্ষিপ্ত মনে রাখা সহজ এবং মনে রাখার মত নাম দিন ।এতে আপনার চ্যানেল খুঁজে পেতে সহায়তা করবে । 

নতুন চ্যানেল তৈরি করতে ডেক্সটপ কম্পিউটার, ল্যাপটপ বা মোবাইল ডিভাইস ব্যবহার করতে পারেন।

ধাপ তিন (৩) 

কি ধরনের ভিডিও আপলোড দিবেন ?

এমন ধরনের ভিডিও বানাতে হবে যে ভিডিও গুলো মানুষ দেখার জন্য আগ্রহী থাকবে বা এই ভিডিও এর প্রতি এক ধরনের আকর্ষণ থাকবে ।

বেশিরভাগ মানুষ এর মনকে জয় করতে পারে এমন ধরনের ভিডিও বানাতে পারলে আপান্র সাকসেস খুব তাড়াতাড়ি আসতে বাধ্য ।

এই ব্যাপারে আপনি যদি অভিজ্ঞ হয়ে থাকেন তবে তো কোন কথাই নেই আর যদি অভিজ্ঞ না থাকেন বা আইডিয়া না পান কোন সমস্যা নেই ।আমরা আপনাকে এ ব্যাপারে সাহায্য করব ।

প্রথমেই বলে নেয়া ভালো যে আপনি আগে নিজেকে ভাবুন আপনি কোন বিষয়ে পারদর্শী ।

অথবা কোন কাজটি আপনার সবচেয়ে পছন্দের এবং এই কাজটির প্রতি আপনার অনেক ভালোবাসা আছে । 

আপনি যে বিষয়ে সবচেয়ে ভালো অভিজ্ঞ অথবা জানেন আমাদের পরামর্শ আপনি সেই ধরনের কনটেন্ট নিয়ে কাজ করেন । 

আপনি যদি ভালো রান্না-বান্না করতে পারেন এক্ষেত্রে আপনার উচিত রান্নাবান্না সম্পর্কিত ভিডিও বানানো । 

আপনি যদি অনলাইন ইঙ্কামের উপর অভিজ্ঞ থাকেন তবে এর উপর টিউটরিয়াল বানাতে পারেন ।

আমরা আপনাকে বেশ কিছু আইডিয়া দেবো এই আইডিয়ার  মধ্য থেকে আপনার কাছে যেগুলো ভালো মনে হবে সেগুলো নিয়ে একদম চোখ বুজে কাজ করতে পারবেন ।

আইডিয়া নং এক 

টেকনোলজি 

বর্তমান  সময়ে ইন্টারনেট অথবা ইউটিউবে মানুষ সব থেকে বেশি সার্চ করে টেকনোলজি সম্বন্ধে । এখন টেকনোলজি খুব পপুলার একটি বিষয় । 

মানুষ এই বিষয় নিয়ে খুব আগ্রহী তাই এই ধরনের ভিডিও বানালে আপনার ভিডিও অনেক মানুষ দেখবে এবং এর থেকে আপনি ভাল ইনকাম করতে পারবেন ।

আইডিয়া নং দুই

অ্যাপ রিভিউ: 

আজকাল প্রায় সবাই এই এন্ড্রয়েড মোবাইল ফোন ব্যবহার করছেন । বেশীর ভাগ মানুষ এই  অ্যান্ড্রয়েড অ্যাপস এর ব্যবহার জানেন ।

বিভিন্ন ধরনের হাজার হাজার অ্যাপস  পাবেন গুগল প্লে স্টোরে । এগুলোর কাজ ও বিভিন্ন ধরনের । 

গেম  থেকে শুরু করে লেখাপড়া , কমেডি , হেলথ বিষয় কি নেই এই সব  অ্যাপ এ । আপনি প্লে স্টোরে থেকে এই সমস্ত অ্যাপসের ইন্সটল থেকে শুরু করে এর ব্যবহার বিধি এর কাজ সব বিষয় এ খুঁটি নাটি রিভিউ করে  তার ভিডিও বানিয়ে আপলোড করতে পারেন ।

আইডিয়া নং তিন 

মোবাইল ফোন রিভিউ: 

মোবাইল ফোন রিভিউ খুব সোজা একটি কাজ । এই কাজ করতে তেমন কিছু লাগে না । এটা আপনি আপনার বাসায় বসে যে কোন সময় করে নিতে পারেন ।

এই খেত্রে কাজ করে আজ অনেকেই ইউটিউব এ সাকসেস ইউটিউবার হয়ে গেছেন । তারা খুব  ভালো টাকা ইনকাম করছেন ।

আপনিও চাইলে এই কাজ টি চোখ বুজে অনায়াসে করতে পারেন । এখানে আপনাকে তেমন পরিশ্রম করতে হবএ না । 

শুধু নতুন মোবাইল ফোন যেগুলো বাজারে আসবে বা আসছে সেই সমস্ত মোবাইল ফোনের রিভিউ করে আপনার চ্যানেলে আপলোড করতে পারেন ।

আপনি যত ভালোভাবে উপস্থাপন করতে পারবেন আপনার চ্যানেল তত লোক গ্রহন করবে । খুব তাড়াতাড়ি এই খেত্রে সাকসেস পাবেন ।

ফিশিং বা মাছ ধরার ভিডিও  Youtube fishing

আইডিয়া নং চার

ফিশিং বা মাছ ধরার ভিডিও 

যদি আপনি গ্রামে থাকেন অথবা আপনি এই মাছ ধরার সাথে সংশ্লিষ্ট  থাকেন বা আপনার মাছ ধরা খুব শখ ।

 তাহলে আমরা বলবো আপনি এই মাছ ধরার ভিডিও গুলো তৈরি করতে পারেন । আপনার হাতে থাকা মোবাইল এর মাধ্যমে ভিডিও করে আপনার চ্যানেলে আপলোড করে দিতে পারেন । আপনি যত ভিডিও আপলোড দিতে পারবেন ধীরে ধীরে আপনার চ্যানেল জনপ্রিয় হতে থাকবে ।

এক্ষেত্রে আপনি বিভিন্নভাবে মাছ ধরার ভিডিও সংগ্রহ করতে পারেন । আপনি আপনার বন্ধু-বান্ধবের কাছ থেকেও এই মাছ ধরার ভিডিও সংগ্রহ করতে পারেন। অথবা অন্য কেহ মাছ ধরলে তার ভিডিও নিজে ধারণ করে আপলোড দিতে পারেন ।

এখানে মাছ ধরার বিভিন্ন টেকনিক ও কলাকৌশল অবলম্বনে ভিডিও তৈরী করে আপলোড দিতে পারেন ।

 বিশ্বে মাছ ধরার চ্যানেলগুলো খুবই জনপ্রিয় । মানুষ এটা খুব আগ্রহের সাথে সবসময় দেখে থাকে । এখান থেকে খুব ভালো ইনকাম করা যায় ।

আরোও জানুন 

ভিডিও করার সবথেকে কার্যকরী ১০ (দশটি) আইডিয়া জানতে এখানে ক্লিক করুন

ইউটিউব ভিডিও

ধাপ চার (৪)

মনিটাইজেসন অন করা

মনিটাইজেসন অন করা এর অর্থ হল ভিডিও তে এড দেখান । গুগল ভিডিও তে এড পাবলিশ করার অনুমোদন । 

আর এই এড দেখানো এর মাধ্যমে ভিডিও তে ইনকাম শুরু হবে, যত ভিউ তত ইনকাম ।   চ্যানেল  এ ভিডিও বৃদ্ধি এর সাথে এর ইনকাম ও বৃদ্ধি পেতে থাকে ।

চ্যানেল যত জনপ্রিয়তা লাভ করবে ইনকাম ও তত বেশী হবে  । 

এই ছবিটিতে দেখা যাচ্ছে যে এখানে সাবস্ক্রাইব ১০৪০ , যেটা পূরণ করতে দরকার ছিল ১০০০ সেটা কমপ্লিট হয়েছে ।  কিন্তু ওয়াচ টাইম দরকার ছিল ৪০০০ ঘন্টা । এখানে ওয়াচ টাইম টা পূর্ণ না হওয়ার কারণে টিক চিহ্নটা আসে নাই । 

যখনই ৪০০ ঘন্টা ওয়াচ টাইম পূরণ হবে তখনই মনিটাইজেশন অপশন চালু করা যাবে ।

প্রাথমিকভাবে  গুগল মনিটাইজেস্ন এর খেত্রে ৩ টি নয়ম বেধে দিয়েছে । 

০১) এক নম্বর ১০০০সাবস্ক্রাইবার থাকতে হবে ।

০২) দুই নম্বর ৪০০০ ঘন্টা ওয়াচ টাইম থাকতে হবে ( সর্বশেষ ১২ মাস সময়ের মধ্যে) 

০৩) কোন কমিউনিটি গাইডলাইন স্ট্রাইক থাকা চলবে না ।

আরও জানতে পড়তে থাকুন 

কিভাবে তাড়াতাড়ি ১০০০ সাবস্ক্রাইব এবং ৪০০০ ঘন্টা ওয়াচ টাইম অর্জন করা যায় তার নিনজা টেকনিক ।

ধাপ পাঁচ (৫)

এডসেন্স যোগ করা 

ধাপ ছয় (৬)

টাকা হাতে পাওয়া 

হাতে টাকা পেতে হলে প্রথমেই যে কাজটি করতে হবে সেটি হল আপনার এডসেন্স একাউন্টের সাথে স্থানীয় বা লোকাল ব্যাংক এর বিবরণ যোগ করতে হবে ।

এডসেন্স একাউন্টে মিনিমাম ১০০ ডলার বা তার বেশী জমা হলে গুগল ই এফ টি এর মাধ্যমে আপনার ব্যাংক একাউন্ট এ পাঠিয়ে দেয় । 

দেশের ব্যাংক এর ডলারের বিনিময় যে অর্থ পাওয়া যাবে সেই হিসাবে আপনি টাকা উত্তোলন করিতে পারিবেন ।

ডলারের রেট উঠা নামার কারণে আপনার টাকার পরিমান ও উঠা-নামা করতে পারে । মনে করুন আজকে ডলারের রেট যদি হয় ৮৪ টাকা তাহলে আপনি ১০০ ডলারের বিনিময়ে পাবেন ১০০x ৮৪ = ৮৪০০ টাকা । 

এই ভাবে টাকার সহজ হিসেব করে নিতে পারেন । 

সবশেষে 

আমারা চাই আপনি ও আপনারা গুগল থেকে যত পারেন ইন কাম করুন । এটা একটা সমুদ্র । এখানে আপনি যত শ্রম দিবেন আপনি তত ইনকাম করতে পারবেন । শ্রম এর সাথে আপনাকে অনেক টেক নিক জানতে হবে আর এই টেকনিক জানতে আমাদের সাথে থাকুন । আমাদের সাথে থাকলে আপনি সফল হবেন ইনশাল্লাহ । 

আরও জানতে পড়ুন এখান থেকে

ইউটিউব থেকে আয় করার উপায়

  • বিডি নিউজ ওয়াল ফেসবুক গ্রুপে যোগ দিয়ে আমাদের সাথে থাকুন এবং যেকোনো প্রশ্ন করুতেঃ এখানে ক্লিক করুন
  • বিডি নিউজ ওয়াল ফেসবুক পেইজ লাইক করে সাথে থাকুনঃ এই পেজ ভিজিট করুন।
  • বিডি নিউজ ওয়াল ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করতে এখানে ক্লিক করুন এবং দারুণ সব ভিডিও দেখুন।
  • গুগল নিউজে বিডি নিউজ ওয়াল সাইট ফলো করতে এখানে ক্লিক করুন তারপর ফলো করুন।
  • বিডি নিউজ ওয়াল সাইটে বিজ্ঞাপন দিতে চাইলে যোগাযোগ করুন এই লিংকে
  • বিডি নিউজ ওয়াল এর সব তথ্য জানতে ভিজিট করুন এই সাইট।

অনুরোধ

আশা করি আমাদের এই লেখাটি আপনার ভাল লেগেছে । যদি আমরা আপনার সামান্য উপকারে আসি তবে আমাদের এই লেখাটি আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করতে পারেন । অথবা লাইক ,কমেন্ট করে আমাদের সাথে থাকুন । আমরা আরও লেখা নিয়ে হাজির হব ইনশাল্লাহ । আপনার কোন মূল্যবান মতামত অথবা কিছু জানার আগ্রহ থাকলে আমাদের জানাতে পারেন । আমরা অবশ্যই উত্তর দিতে সচেষ্ট থাকবো । আপনার মূল্যবান কোন লেখা আমাদের বিডি নিউজ ওয়ালে পোস্ট করতে চাইলে আমাদের সাথে যোগাযোগ করতে পারেন অথবা মেইল করতে এইখানে ক্লিক করুন । আমাদের সাথে থাকার জন্য আপনাকে ধন্যবাদ ।

Leave a Reply

Your email address will not be published.